Backdrop-01

ইউনিবেটর: বিজয়ী দল পাবে ১০ লাখ টাকা ও ফ্রি অফিস স্পেস

‘ইউনিবেটর’ থেকে বিজয়ী ১০ দল মাসব্যাপী ইনকিউবেশনের পাশাপাশি নিজেদের আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য ১০ লাখ টাকা এবং বিনামূল্যে অফিস স্পেস পাবে। সেই সঙ্গে বিজয়ী শীর্ষ তিন স্টার্টআপকে গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করানো হবে বলে জানায় এই প্রতিযোগিতার আয়োজকবৃন্দ। শুক্রবার দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হওয়া মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পের দ্বিতীয় দিন কথাগুলো জানানো হয়।

স্টার্টআপ কালচার গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে দেশে প্রথমবারের মত আইইবি ঢাকা সেন্টার বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষকদের নিয়ে এ ধরণের ক্যাম্পের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এর আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) ঢাকা সেন্টার, যেখানে সহযোগী হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি।

ইউনিবেটর মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পের অতিথি সেশনে গুগল, ফেসবুক ও মাইক্রোসফটের প্রতিনিধিরা রয়েছেন আলোচক হিসেবে। দেশে প্রথমবারের মতো ‘স্টার্টআপ মেন্টর’ গড়ে তোলার উদ্যোগে ইউনিবেটর ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’-এর আয়োজন করছে যেখানে প্রথমদিন ১১ ফেব্রুয়ারি যুক্ত ছিলো গুগল। শনিবার পৃথক দুটি অতিথি সেশনে যুক্ত থাকবেন ফেসবুক ও মাইক্রোসফটের প্রতিনিধিরা এবং রবিবার প্যানেল ডিসকাশনে অংশ নেবেন ডেল টেকনোলজিসের প্রতিনিধি।

অতিথি সেশনে গত ১১ ফেব্রুয়ারি গুগল থেকে যুক্ত হয়েছিলেন নেক্সট বিলিয়ন ইউজার (এনবিইউ)-এর হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি।

মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পে অতিথি সেশনে শনিবার থাকছেন বাংলাদেশে ফেসবুকের হেড অব পাবলিক পলিসি শাবহানাজ রাশিদ দিয়া। তিনি আলোচনা করবেন ‘ডিজিটাল ইকোনমি’তে উদ্ভাবনকে উৎসাহ প্রদানের বিষয়ে।

মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে শনিবার মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পে অতিথি সেশনে অংশ নেবেন মাইক্রোসফ্ট বাংলাদেশের হেড অব চ্যানেল সেলার মাশরুর হোসেন। আর শেষ দিন মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পে প্যানেল ডিসকাশনে অংশ নেবেন টেক জায়ান্ট ডেল টেকনোলজিস-এর এশিয়া প্যাসিফিক অ্যান্ড জাপান (এপিজে) সিএক্সও অ্যাডভাইজরি বোর্ডের সদস্য সোনিয়া বশির কবীর।

চারদিন ব্যাপী এই ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’-এ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত থাকবেন বিভিন্ন ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক আইটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি এবং সরকারের নীতি নির্ধারনী পর্যায়ের শীর্ষ কর্মকর্তাবৃন্দ।

প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লাখ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে প্রবেশ করে। নিয়ম অনুসারে, তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলস্বরূপ, শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে পূর্বের বছরসমূহে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এর আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) ঢাকা সেন্টার যৌথভাবে শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রজেক্ট, কনসেপ্ট, আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন করছে যেখানে সহযোগী হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। সূত্র: একুশে টেলিভিশন।

Tags: No tags

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *