MDC-Day-2

Unibator programme draws huge response from youths

DHAKA, Feb 12, 2021 (BSS) – Unibator, a programme that hopes to bring a change in the thinking process of educational institutions and upcoming graduate-level students regarding the thesis and academic projects, is attracting huge response from youths.

“Initiated by the Bangladesh Hi-Tech Park Authority (BHTPA) and Institution of Engineers, Bangladesh (IEB), the programme aims to turn all the innovative ideas of any university-level student to business through proper guidance. The students can take part in the programme with their thesis, projects or assignments. We would select 10 best innovative ideas from these thesis or project papers and after month-long incubation to turn them into product or service, we would make them world-class companies,” Engineer Kazi Khairul Bashar, honorary secretary of IEB Dhaka center, told BSS.

State Minister for ICT Division Zunaid Ahmed Palak launched the programme on January 29 and registration process was launched on February 1 and will go on till February 28. Youths can register themselves for the programme on https://www.unibatorbd.org/ .

According to the Institution of Engineers, Bangladesh (IEB) sources, more than five thousand youths have so far registered themselves till now.

Under this Unibator platform, mentor development camp is being held in the country for the very first time. Starting from February 11, the camp will go on at IEB Dhaka Center till February14. Some teachers of different universities will be prepared as ‘startup mentor’ and an information ecosystem would be created through them. These teachers would hold different sessions later for the students and also act as their mentors.

“The 10 winning startups would be given office space at infrastructures of Bangladesh Hi-Tech Park Authority and each startup would be given Taka 10 lakh as primary capitol. The three best startups would be given chance to take part in global competition,” Engineer Kazi Khairul Bashar added. Source: BSS news.

Backdrop-01

ইউনিবেটর : ফ্রি অফিস স্পেসের পাশাপাশি প্রতিটি বিজয়ী দল পাবে ১০ লাখ টাকা

‘ইউনিবেটর’ থেকে বিজয়ী ১০ দল মাসব্যাপী ইনকিউবেশনের পাশাপাশি নিজেদের আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি হিসেবে প্রতিষ্ঠার জন্য ১০ লাখ টাকা এবং বিনামূল্যে অফিস স্পেস পাবে। সেই সঙ্গে বিজয়ী শীর্ষ তিন স্টার্টআপকে গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করানো হবে বলে জানায় এই প্রতিযোগিতার আয়োজকবৃন্দ।

শুক্রবার দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হওয়া মেন্টর ডেভলপমেন্ট ক্যাম্পের দ্বিতীয় দিনে কথাগুলো জানানো হয়।

স্টার্টআপ কালচার গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে দেশে প্রথমবারের মত আইইবি ঢাকা সেন্টার বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষকদের নিয়ে এ ধরণের ক্যাম্পের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এর আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) ঢাকা সেন্টার, যেখানে সহযোগী হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি।

ইউনিবেটর মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পের অতিথি সেশনে গুগল, ফেসবুক ও মাইক্রোসফটের প্রতিনিধিরা রয়েছেন আলোচক হিসেবে। দেশে প্রথমবারের মতো ‘স্টার্টআপ মেন্টর’ গড়ে তোলার উদ্যোগে ইউনিবেটর ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’-এর আয়োজন করছে যেখানে প্রথমদিন ১১ ফেব্রুয়ারি যুক্ত ছিলো গুগল। শনিবার পৃথক দুটি অতিথি সেশনে যুক্ত থাকবেন ফেসবুক ও মাইক্রোসফটের প্রতিনিধিরা এবং রবিবার প্যানেল ডিসকাশনে অংশ নেবেন ডেল টেকনোলজিসের প্রতিনিধি।

অতিথি সেশনে গত ১১ ফেব্রুয়ারি গুগল থেকে যুক্ত হয়েছিলেন নেক্সট বিলিয়ন ইউজার (এনবিইউ)-এর হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি।

মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পে অতিথি সেশনে শনিবার থাকছেন বাংলাদেশে ফেসবুকের হেড অব পাবলিক পলিসি শাবহানাজ রাশিদ দিয়া। তিনি আলোচনা করবেন ‘ডিজিটাল ইকোনমি’তে উদ্ভাবনকে উৎসাহ প্রদানের বিষয়ে।

মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে শনিবার মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পে অতিথি সেশনে অংশ নেবেন মাইক্রোসফ্ট বাংলাদেশের হেড অব চ্যানেল সেলার মাশরুর হোসেন। আর শেষ দিন মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্পে প্যানেল ডিসকাশনে অংশ নেবেন টেক জায়ান্ট ডেল টেকনোলজিস-এর এশিয়া প্যাসিফিক অ্যান্ড জাপান (এপিজে) সিএক্সও অ্যাডভাইজরি বোর্ডের সদস্য সোনিয়া বশির কবীর।

চারদিন ব্যাপী এই ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’-এ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত থাকবেন বিভিন্ন ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক আইটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি এবং সরকারের নীতি নির্ধারনী পর্যায়ের শীর্ষ কর্মকর্তাবৃন্দ।

প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লাখ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে প্রবেশ করে। নিয়ম অনুসারে, তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলস্বরূপ, শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে পূর্বের বছরসমূহে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এর আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) ঢাকা সেন্টার যৌথভাবে শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রজেক্ট, কনসেপ্ট, আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন করছে যেখানে সহযোগী হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। সূত্র: প্রতিদিনের সংবাদ।

pic1

দেশে প্রথমবারের মত শুরু হলো ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’

ঢাকা: তরুণদের মধ্যে সাড়া জাগানো ‘ইউনিবেটর’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রথমবারের মত দেশে শুরু হয়েছে ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’ (এমডিসি)।

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টা থেকে রাজধানীর আইইবির শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে এই অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে।

বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের (বিএইচটিপিএ) আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশের (আইইবি) বিশেষ উদ্যোগে এবং ইভ্যালির সহযোগিতায় আয়োজিত চার দিনব্যাপী এই বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তৈরি করা হবে ২০ জন ‘স্টার্টআপ মেন্টর’কে। যাদের মাধ্যমে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরির পথে আরও একধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছে ৫ হাজারের বেশি তরুণ। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে:https://www.unibatorbd.org/
এই আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশ নিতে পারবেন যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা।  

‘ইউনিবেটর এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাইকৃত শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেওয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

‘ইউনিবেটর’ প্লাটফর্মের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত আয়োজন করা হচ্ছে ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’।   প্রথমদিন ১১ ফেব্রুয়ারি অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুগলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজারে (এনবিইউ) হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল।  

উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং দেন তিনি।  

চার দিনব্যাপী এই ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’ এ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত থাকবেন ফেসবুক, বিভিন্ন ভেঞ্চর ক্যাপিটাল কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহ এবং সরকারি নীতি নির্ধারনী ব্যক্তি ও প্রতিনিধিরা।

গত ২৯ জানুয়ারি, আইইবির শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ইনোভেশনভিত্তিক এই আয়োজনে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সঠিক দিক-নির্দেশনা দেন।

ইউনিবেটরের মাধ্যমে ১০টি বিজয়ী স্টার্টআপকে ১ মাস ইনকিউবেশন ট্রেনিং দেওয়া হবে এবং প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য প্রস্তুত করা হবে। সর্বশেষ ১০টি স্টার্টআপ প্রস্তুত হয়ে গেলে একত্রে বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যম কোম্পানি আকারে ঘোষণা করা হবে। এই নতুন কোম্পানিগুলোকে হাইটেক পার্কের স্থাপনায় অফিস স্পেস দেওয়া হবে এবং প্রত্যেকটি স্টার্ট আপকে ১০ লাখ টাকা প্রাথমিক মূলধন দেওয়া হবে। এছাড়াও শীর্ষ তিনটি স্টার্ট আপ গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশ নেবে। ইউনিবেটর প্রোগ্রামের স্পন্সার হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। এছাড়া স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্ট। সূত্র: বাংলা নিউজ ২৪ ডটকম

Backdrop-01

দেশের প্রথম ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’ শুরু

তরুণদের মাঝে সাড়া জাগানো ‘ইউনিবেটর’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হলো চার দিনব্যাপী ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প (এমডিসি)’। বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক ও ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশের (আইইবি) উদ্যোগে বিশেষ এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তৈরি করা হবে ২০ জন ‘স্টার্টআপ মেন্টর’। 

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এ প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছে ৫ হাজারের বেশি তরুণ। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে: https://www.unibatorbd.org/

আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থী। ইনোভেটিভ সব আইডিয়াকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা। 

ইউনিবেটরের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাইকৃত শীর্ষ ১০ বিজয়ী স্টার্টআপকে এক মাস ইনকিউবেশন ট্রেনিং দেওয়া হবে এবং প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য প্রস্তুত করা হবে। সর্বশেষ ১০টি স্টার্টআপ প্রস্তুত হয়ে গেলে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কোম্পানি আকারে ঘোষণা করা হবে। এ নতুন কোম্পানিগুলোকে হাইটেক পার্কের স্থাপনায় অফিস স্পেস দেওয়া হবে এবং প্রত্যেকটি স্টার্টআপকে ১০ লাখ টাকা প্রাথমিক মূলধন প্রদান করা হবে। এছাড়া শীর্ষ তিনটি স্টার্টআপ গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশ নেবে। 

অনুষ্ঠানের প্রথমদিন বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- গুগলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজারের (এনবিইউ) হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি। 

চার দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত থাকবেন ফেসবুক, বিভিন্ন ভেঞ্চর ক্যাপিটাল কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি নীতিনির্ধারক ব্যক্তি ও প্রতিনিধিরা।

এতে স্পনসর হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। এছাড়া স্ট্রাটেজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্ট।

গত ২৯ জানুয়ারি আইইবি’র শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে এ আয়োজনের উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ইনোভেশনভিত্তিক এ আয়োজনে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের দিকনির্দেশনা প্রদান করেন তিনি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি। সূত্র: সমকাল ।

MDC-1

দেশে প্রথমবারের মতো ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’ শুরু

তরুণদের মাঝে সাড়া জাগানো ‘ইউনিবেটর’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হয়েছে ‘মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প’ (এমডিসি)। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের (বিএইচটিপিএ) আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অব ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশের (আইইবি) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত চারদিনের এই বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তৈরি করা হবে ২০ জন ‘স্টার্টআপ মেন্টর’-কে। যাদের মাধ্যমে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরির পথে বাংলাদেশ আরও একধাপ এগিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছেন ৫ হাজারের বেশি তরুণ। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে।এ আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা।

‘ইউনিবেটর’-এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাই করে শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প।

প্রথম দিন বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুগলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজারের (এনবিইউ) হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি।

এই আয়োজনে অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত থাকবেন ফেসবুক, বিভিন্ন ভেঞ্চর ক্যাপিটাল কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠান সমূহ এবং সরকারের নীতি-নির্ধারণী ব্যক্তি ও প্রতিনিধিরা।

উল্লেখ্য, প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লাখ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে আসেন। নিয়ম অনুযায়ী তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক শেষ করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলে শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে আগের বছরগুলোতে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রোজেক্ট, কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন। সূত্র: জাগো নিউজ ২৪ ।

MDC-3

তরুণদের মাঝে সাড়া ফেলেছে ‘ইউনিবেটর’

তরুণদের মাঝে দারুণ সাড়া ফেলেছে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক ও ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) এর বিশেষ উদ্যোগ ‘ইউনিবেটর’।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছে ৫ হাজারের বেশি তরুণ।

১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে: https://www.unibatorbd.org/

এই আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা।

‘ইউনিবেটর’-এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাইকৃত শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

এছাড়াও ‘ইউনিবেটর’ প্লাটফর্মে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প। ১১ ফেব্রয়ারি থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আইইবি ঢাকা কেন্দ্রে আয়োজিত হবে এই ক্যাম্প যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ‘স্টার্টআপ মেন্টর’ হিসেবে প্রস্তুত করে একটি ইনফরমেশন ইকোসিস্টেম তৈরী করা হবে।

পরে এই শিক্ষকদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জন্য ভার্চুয়ালি বিশেষ সেশনের আয়োজন করা হবে। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক পিচিং শেষে বাছাই করা দলগুলোর মেন্টর হিসেবে থাকবেন এই শিক্ষকরা।

গত ২৯ জানুয়ারি, আইইবি’র শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ইনোভেশন ভিত্তিক এই আয়োজনে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সঠিক দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

এছাড়াও শীর্ষ তিনটি স্টার্ট আপ গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করবে। ইউনিবেটর প্রোগ্রামের স্পনসর হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। এছাড়া স্ট্র‍্যাটেজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্ট।

ব্র‍্যান্ড পার্টনার হিসেবে আছে গুগল, ফেসবুক ও মাইক্রোসফট। উদ্বোধনী সেশনে উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন গুগুলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজার ইনিশিয়েটিভ এর অপারেশন হেড বিকে রাসেল।

প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লক্ষ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে প্রবেশ করে। নিয়ম অনুসারে, তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়।

ফলস্বরূপ, শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে পূর্বের বছরসমূহে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি) যৌথভাবে শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রোজেক্ট/ কনসেপ্ট/ আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন। সূত্র: চ্যানেল আই অনলাইন ।

MDC-1

দেশে প্রথমবারের মত শুরু হলো ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’

তরুণদের মাঝে সাড়া জাগানো ‘ইউনিবেটর’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রথমবারের মত দেশে শুরু হলো ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’ (এমডিসি)। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এর আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি) এর বিশেষ উদ্যোগে এবং ইভ্যালির সহযোগিতায় আয়োজিত চারদিন ব্যাপী এই বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তৈরি করা হবে ২০ জন ‘স্টার্টআপ মেন্টর’কে। যাদের মাধ্যমে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরির পথে আরো একধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছে ৫ হাজারের বেশি তরুণ। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে: https://www.unibatorbd.org/

এই আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা। ‘ইউনিবেটর’-এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাইকৃত শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

‘ইউনিবেটর’ প্লাটফর্মের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প। প্রথমদিন ১১ ফেব্রুয়ারি অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুগলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজার (এনবিইউ)-এর হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি। চারদিন ব্যাপী এই ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’-এ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত থাকবেন ফেসবুক, বিভিন্ন ভেঞ্চর ক্যাপিটাল কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠান সমূহ এবং সরকারি নীতি নির্ধারণী ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিনিধিবৃন্দ।

গত ২৯ জানুয়ারি, আইইবি’র শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ইনোভেশন ভিত্তিক এই আয়োজনে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সঠিক দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

ইউনিবেটরের মাধ্যমে ১০টি বিজয়ী স্টার্টআপকে ১ মাস ইনকিউবেশন ট্রেনিং দেয়া হবে এবং প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য প্রস্তুত করা হবে। সর্বশেষ ১০টি স্টার্টআপ প্রস্তুত হয়ে গেলে একত্রে বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যম কোম্পানি আকারে ঘোষণা করা হবে। এই নতুন কোম্পানিগুলোকে হাইটেক পার্কের স্থাপনায় অফিস স্পেস দেয়া হবে এবং প্রত্যেকটি স্টার্ট আপ কে ১০ লক্ষ টাকা প্রাথমিক মূলধন প্রদান করা হবে। এছাড়াও শীর্ষ তিনটি স্টার্ট আপ গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করবে। ইউনিবেটর প্রোগ্রামের স্পনসর হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। এ ছাড়া স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্ট।

প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লক্ষ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে প্রবেশ করে। নিয়ম অনুসারে, তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলস্বরূপ, শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে পূর্বের বছরসমূহে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এর আওতাধীন শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর প্রকল্প, চুয়েট এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি) যৌথভাবে শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রোজেক্ট/ কনসেপ্ট/ আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন। সূত্র: ভোরের কাগজ ।

pic1

দেশে প্রথমবারের মত শুরু হলো ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’

তরুণদের মাঝে সাড়া জাগানো ‘ইউনিবেটর’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রথমবারের মত দেশে শুরু হলো ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’ (এমডিসি)। বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক ও ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) এর বিশেষ উদ্যোগে এবং ইভ্যালির সহযোগিতায় আয়োজিত চারদিন ব্যাপী এই বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে তৈরি করা হবে ২০ জন ‘স্টার্টআপ মেন্টর’কে। যাদের মাধ্যমে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরির পথে আরো একধাপ এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল স্টার্টআপ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করেছে ৫ হাজারের বেশি তরুণ। ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। রেজিস্ট্রেশনের জন্য এই লিংকে ক্লিক করতে হবে: https://www.unibatorbd.org

এই আয়োজনে নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকেরা। ‘ইউনিবেটর’-এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাইকৃত শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

‘ইউনিবেটর’ প্লাটফর্মের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প। প্রথমদিন ১১ ফেব্রুয়ারি অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুগলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজার (এনবিইউ)-এর হেড অব অপারেশন বিকি রাসেল। উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন তিনি। চারদিন ব্যাপী এই ‘মেন্টর ডেভলোপমেন্ট ক্যাম্প’-এ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত থাকবেন ফেসবুক, বিভিন্ন ভেঞ্চর ক্যাপিটাল কোম্পানি, শিল্প প্রতিষ্ঠান সমূহ এবং সরকারি নীতি নির্ধারনী ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিনিধিবৃন্দ।

গত ২৯ জানুয়ারি, আইইবি’র শহীদ প্রকৌশলী ভবনের কাউন্সিল হলে এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ইনোভেশন ভিত্তিক এই আয়োজনে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সঠিক দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

ইউনিবেটরের মাধ্যমে ১০টি বিজয়ী স্টার্টআপকে ১ মাস ইনকিউবেশন ট্রেনিং দেয়া হবে এবং প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য প্রস্তুত করা হবে। সর্বশেষ ১০টি স্টার্টআপ প্রস্তুত হয়ে গেলে একত্রে বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যম কোম্পানি আকারে ঘোষণা করা হবে। এই নতুন কোম্পানিগুলোকে হাইটেক পার্কের স্থাপনায় অফিস স্পেস দেয়া হবে এবং প্রত্যেকটি স্টার্ট আপ কে ১০ লক্ষ টাকা প্রাথমিক মূলধন প্রদান করা হবে। এছাড়াও শীর্ষ তিনটি স্টার্ট আপ গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করবে। ইউনিবেটর প্রোগ্রামের স্পনসর হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। এ ছাড়া স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্ট।

উল্লেখ্য, প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় এক মিলিয়ন (১০ লক্ষ) শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে প্রবেশ করে। নিয়ম অনুসারে, তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলস্বরূপ, শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে কাজ করার চেয়ে পূর্বের বছরসমূহে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইইবি) যৌথভাবে শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রোজেক্ট/ কনসেপ্ট/ আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন। সূত্র: মানবকণ্ঠ

Jonokontho

তরুণদের মাঝে সাড়া ফেলেছে ‘ইউনিবেটর’

তরুণদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক ও ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (আইইবি) এর বিশেষ উদ্যোগ ‘ইউনিবেটর’। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তৈরি করা বিভিন্ন অ্যাসাইনমেন্ট, প্রজেক্ট ও থিসিস পেপার থেকে সফল ‘স্টার্টআপ’ তৈরির এই প্রতিযোগিতায় ইতোমধ্যেই রেজিস্ট্রেশন করেছে পাঁচ হাজারের বেশি তরুণ। গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই রেজিস্ট্রেশন চলবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। জন্য এই করতে হবে: (www.unibatorbd.org) এই লিংকে প্রবেশ করেরেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

এই প্রতিযোগীতায় নিজেদের থিসিস, প্রজেক্ট বা অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষার্থী। দুর্দান্ত সব ইনোভেটিভ আইডিয়াগুলোকে সঠিক দিকনির্দেশনার মাধ্যমে ব্যবসায় পরিণত করার জন্যই এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলে বলছেন আয়োজকেরা। ‘ইউনিবেটর’-এ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের থিসিস বা প্রজেক্ট পেপার থেকে বাছাই করা শীর্ষ ১০টি উদ্ভাবনী আইডিয়াকে পণ্য বা সেবায় রূপ দেয়ার জন্য মাসব্যাপী ইনকিউবেশন শেষে এবং ১০টি আন্তর্জাতিক মানের কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হবে।

এছাড়াও ‘ইউনিবেটর’ প্লাটফর্মে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হচ্ছে মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প। বৃহস্পতিবার থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আইইবি ঢাকা কেন্দ্রে আয়োজিত হবে এই ক্যাম্প, যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ‘স্টার্টআপ মেন্টর’ হিসেবে প্রস্তুত করে একটি ইনফরমেশন ইকোসিস্টেম তৈরী করা হবে। পরবর্তীতে এই শিক্ষকদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জন্য ভার্চুয়ালি বিশেষ সেশনের আয়োজন করা হবে। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক পিচিং শেষে বাছাই করা দলগুলোর মেন্টর হিসেবে থাকবেন এই শিক্ষকরা।

গত ২৯ জানুয়ারি আইইবিতে এই আয়োজনের উদ্বোধন করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ইনোভেশন ভিত্তিক এই আয়োজনে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সঠিক দিকনির্দেশনা দেন। ইউনিবেটরের মাধ্যমে ১০টি বিজয়ী স্টার্টআপকে এক মাস ইনকিউবেশন ট্রেনিং দেয়া হবে এবং প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশের জন্য প্রস্তুত করা হবে। ১০টি স্টার্টআপ প্রস্তুত হয়ে গেলে একত্রে বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যম কোম্পানি আকারে ঘোষণা করা হবে। এই নতুন কোম্পানিগুলোকে হাইটেক পার্কের স্থাপনায় অফিস স্পেস দেয়া হবে এবং প্রত্যেকটি স্টার্ট আপ কে ১০ লক্ষ টাকা প্রাথমিক মূলধন প্রদান করা হবে।

এছাড়া শীর্ষ তিনটি স্টার্ট আপ গ্লোবাল কম্পিটিশনে অংশগ্রহণ করবে। ইউনিবেটর প্রোগ্রামের স্পনসর হিসেবে রয়েছে ইভ্যালি। স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার হিসেবে রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং আইসিটি ডিভিশনের আইডিয়া প্রজেক্ট। ব্র্যান্ড পার্টনার হিসেবে আছে গুগল, ফেসবুক ও মাইক্রোসফট। উদ্বোধনী সেশনে উদ্ভাবন ও বাণিজ্যিকীকরণ বিষয়ে মেন্টরিং প্রদান করেন গুগুলের নেক্সট বিলিয়ন ইউজার ইনিশিয়েটিভের অপারেশন হেড বিকে রাসেল।

প্রতি বছর স্নাতক শেষে প্রায় ১০ লক্ষ শিক্ষার্থী চাকরির বাজারে প্রবেশ করে। নিয়ম অনুসারে, তাদের প্রত্যেককে কমপক্ষে একটি থিসিস বা অনুরূপ একাডেমিক প্রজেক্ট বাধ্যতামূলকভাবে জমা দিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করতে হয়, তবে প্রায় সব ক্ষেত্রেই এই প্রজেক্ট বা কনসেপ্ট বা আইডিয়াগুলো একটি রিপোর্টেই সীমাবদ্ধ থেকে যায়। ফলস্বরূপ শিক্ষার্থীরা নতুন কনসেপ্ট বা উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে# কাজ করার চেয়ে আগের বছরসমূহে ভালো নম্বর পাওয়া বিষয়গুলো বেছে নিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং দ্য ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ যৌথভাবে শিক্ষার্থীদের এই একাডেমিক প্রোজেক্ট/ কনসেপ্ট/ আইডিয়াগুলোকে বাস্তব জীবনের পণ্য বা সেবায় রূপান্তর করে তাদের নিজস্ব বিজনেস ভেঞ্চার গড়ে তুলতে উৎসাহিত করার উদ্যোগ হিসেবেই ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের আয়োজন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। সূত্র: দৈনিক জনকণ্ঠ

Computer Bichitra

উদ্ভাবনী চিন্তাগুলোকে বাস্তবে রূপদান করবে ইউনিবেটর: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ এবং আইইবি এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত হলো “ইউনিবেটর” প্রোগ্রাম। গতকাল শুক্রবার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) এর সদর দপ্তরে ইউনিবেটর প্রোগ্রামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইনে সংযুক্ত ছিলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পলক বলেন, ‘শিক্ষক, শিক্ষার্থী, গ্র্যাজুয়েট কিংবা গবেষকদের থিসিস, ফাইনাল ইয়ার প্রজেক্ট কিংবা এসাইনমেন্টগুলোর সকল উদ্ভাবনী চিন্তা এবং সেগুলোকে পণ্য বা সেবায় রূপান্তরের মাধ্যমে বিজনেস ভেঞ্চারে পরিণত করার জন্যেই ইউনিভার্সিটি ইনকিউবেটর তথা সংক্ষেপে ‘ইউনিবেটর’ প্রোগ্রামের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য মতে, প্রতি বছর প্রায় ১০ লাখ গ্র্যাজুয়েট বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হতে পাস করে বের হয়। নিয়মানুসারে তাদের প্রত্যেককেই কোন না কোন থিসিস, রিসার্চ কিংবা ফাইনাল ইয়ার প্রজেক্ট জমা দিয়ে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করতে হয়। শিক্ষক, শিক্ষার্থী, গ্র্যাজুয়েট কিংবা গবেষকদের এই রিপোর্টগুলোতে বেশ কিছু ডিজরাপটিভ প্রযুক্তি ও উদ্ভাবনী আইডিয়া থাকে। সেগুলো বাস্তব জীবনে পণ্য কিংবা সেবায় রূপান্তর করে সেটার ভিত্তিতে নতুন নতুন বিজনেস ভেঞ্চার তৈরির পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে মেন্টর তৈরির জন্য ইউনিবেটর প্রোগ্রামের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের আওতাধীন শেখ কামাল আইটি ইনকিউবেশন সেন্টার চুয়েট প্রকল্প এবং ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি) এর ঢাকা সেন্টার। 

ইউনিবেটর প্রোগ্রামের প্রথম ধাপে ২০টি বাছাইকৃত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মেন্টর হিসেবে গড়ে তোলার জন্য চারদিনব্যাপী বাংলাদেশের প্রথম মেন্টর ডেভেলপমেন্ট ক্যাম্প আয়োজন, দেশ সেরা ১০টি একাডেমিক প্রজেক্ট বাছাই এর প্রতিযোগিতা এবং সেই ১০টি প্রজেক্টকে মাসব্যাপী ইনকিউবেশনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মানের স্টার্টআপ হিসেবে বাজারে আনার পরিকল্পনা করা হয়েছে। সেরা ১০টি প্রকল্পকে বিনামূল্যে এক মাসের ইনকিউবেশন, স্টার্টআপ লঞ্চিং প্রোগ্রামসহ যাবতীয় ট্রেনিং এবং মেন্টরিং সুবিধা দেয়া হবে এই প্ল্যাটফর্ম থেকে। এছাড়াও দেশব্যাপী স্থাপিত শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং এন্ড ইনকিউবেশন সেন্টার ও সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কের মত স্থাপনাগুলোতে এক বছরের জন্য বিজনেস স্পেস প্রদান করার পাশাপাশি ইনোভেশন ডিজাইন এন্ড অন্ট্রাপ্রেনরশিপ একাডেমি (আইডিয়া) প্রকল্প এবং স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেড হতে ১০ লক্ষ টাকার অনুদানসহ ইক্যুইটি ফান্ডিং এর জন্যও সুযোগ প্রদান করা হবে।

সূত্র: বণিক বার্তা।